অনেক চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

অনেক চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

তাজা খবর:

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অনেক চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এগুলো আমি মাথায় রাখি না। আমি বিভ্রান্তও হই না। গতকাল সকালে রাজধানীর ফার্মগেট খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের তৃণমূলের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে গেলে, যারা ওপরে থেকে বেশি বেশি খায়, বেশি বেশি পায় তাদের তো একটু দুঃখ থাকেই। তারা ভাবে, আমাদের বোধহয় জায়গা হবে না। সে জন্য ষড়যন্ত্র করতেই থাকে। তিনি বলেন, আর কিছু লোকের তো লক্ষ্যই থাকে একটা পতাকা পেতে হবে বা একটু ক্ষমতায় যেতে হবে বা ইত্যাদি। এ ধরনের যাদের আকাঙ্ক্ষা বেশি তারা দেশের মানুষের ভাগ্যের কথা চিন্তা করে না। আর যেন কোনো হায়েনার দল এ দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে, সে ব্যাপারে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর কেন সবাই থমকে গেল সেটা একটা বিরাট প্রশ্ন। যে জাতি এক নেতার ডাকে সাড়া দিয়ে অস্ত্র তুলে নিয়ে দেশ স্বাধীন করেছে, সেই নেতাকে যখন তাঁর পরিবারসহ নির্মমভাবে হত্যা করা হলো তখন সবাই কেন থমকে গেল? সেই প্রশ্নের জবাব কখনো খুঁজে পাইনি। তবে হয়তো পাব। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ভাবমূর্তি পরিবর্তন হয়েছে একটি সিদ্ধান্ত থেকে। যে দিন পদ্মা সেতু নিয়ে আমাদের ওপর দোষারোপ করল, দুর্নীতি হয়েছে। সেটাকে আমি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিলাম। বিশ্বব্যাংক যখন প্রমাণ করতে পারেনি তার পরই বিশ্ববাসী বা বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো, এক সময় যাদের কাছ থেকে আমরা ঋণ নিলে তারা মনে করত যে আমাদের খুব করুণা করল, তারা ঋণ দিতে আগ্রহী হয়ে উঠল। আমি কিন্তু সেই চিন্তা থেকে বাংলাদেশকে সরিয়ে এনেছি। আমরা ঋণ নিয়ে সুদসহ সেটা শোধ দিই, এটা কখনো অনুদান নয়। কাজেই আমরা কিন্তু এখন পরনির্ভরশীল নই। আমাদের উন্নয়ন প্রকল্প আমরা নিজস্ব অর্থায়নে করতে পারি। সেটা আমরা দেখিয়েছি এবং পদ্মা সেতু আমরা নিজস্ব অর্থায়নে যে করতে পারি সেটা প্রমাণ করেছি। এ একটা সিদ্ধান্ত থেকেই কিন্তু সারা বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি পাল্টে গেছে। এখন কেউ আমাদের করুণা করতে সাহস পায় না, বরং আমাদের সমীহ করে চলে। শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু সাড়ে তিন বছরে দেশ গড়বে যা স্বাধীনতাবিরোধী ও যেসব বড় দেশ আমাদের সমর্থন করেনি বরং পাকিস্তানিদের সমর্থন করেছিল, তারা বাংলাদেশের অভ্যুদয় মেনে নিতে পারেনি। তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছিল। নিজের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমি অনেককে দেখেছি হয়তো কিছু সময়ের জন্য বিভ্রান্ত হন। কিন্তু দলের তৃণমূল নেতারা কখনো ভুল করেন না। হয়তো কেউ ক্ষমতার লোভে পড়ে যান। বারবার আঘাত এসেছে। পার্টিও ভেঙেছে। আবার দলকে গড়তে হয়েছে। কাজেই ছাত্রলীগকে বলব, সংগঠনটা গড়তে হবে।

ছাত্রলীগের সাংগঠনিক নেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জন্মলগ্ন থেকেই ছাত্রলীগ দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য কাজ করেছে। বাংলাদেশের সব সংগ্রাম ও ইতিহাসের সঙ্গে ছাত্রলীগ জড়িত। বঙ্গবন্ধু ১৯৪৮ সাল থেকেই চিন্তা করেছিলেন পাকিস্তানের সঙ্গে থাকা যাবে না। এ জন্য তিনি নিউক্লিয়াস গঠনসহ নানা পদক্ষেপ নেন। সেখানে ছাত্রলীগ ছিল তাঁর অগ্রগামী দল। তিনি যখন যে কাজ করেছেন সবার আগে ছাত্রলীগকে মাঠে নামিয়েছেন। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান ‘জয় বাংলা’ মাঠে নিয়ে গেছে ছাত্রলীগ। জাতীয় পতাকার ডিজাইন করে তৈরি রাখার নির্দেশও ছাত্রলীগকে দেওয়া হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু কারাগারে বন্দি হলে ছাত্রলীগের দায়িত্ব আমার মা নিজেই নিতেন। দেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সবচেয়ে বেশি শহীদ হয়েছে ছাত্রলীগ থেকে। ছাত্রলীগের ইতিহাসের সঙ্গে বাংলাদেশের ইতিহাস জড়িত। ছাত্রলীগকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ছাত্রলীগকে সব সময় আদর্শ নিয়ে গড়ে তুলতে হবে। ক্ষমতা লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে ওঠে নিজেদের আদর্শবান কর্মী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের এ অর্জনটা ধরে রাখতে হবে। কারণ, আমাদের দেশের কিছু মানুষ সেই পাকিস্তান আমল থেকে দেখি সব সময় কোনো একটা প্রভু খুঁজে নিয়ে তাদের পদলেহন করতে ব্যস্ত থাকে। তাদের কোনো আত্মমর্যাদা নেই। তাদের নিজের প্রতি কোনো আত্মবিশ্বাস নেই। এদের দিয়ে দেশের মানুষের কল্যাণ হয় না। তিনি বলেন, জাতির পিতাকে স্বাধীনতার পর অনেক সাংবাদিক জিজ্ঞেস করেছেন, এ দেশে তো কিছুই নেই, আপনি কী দিয়ে এই দেশ গড়বেন? তিনি কী বলেছিলেন? বলেছিলেন, আমার মাটি আছে, মানুষ আছে। এই মাটি, মানুষ দিয়েই আমি দেশ গড়ব। মাটি আর মানুষ দিয়েই যে দেশ গড়া যায় সেটা আমরা প্রমাণ করেছি।

ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে থাকার পরামর্শ দিয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রাজনৈতিক নেতা হিসেবে যারা নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে চাও তাদের আদর্শ নিয়ে, সততার সঙ্গে, প্রগতির পথে এগিয়ে যেতে হবে। তিনি বলেন, ছাত্রলীগের মূল মন্ত্রই হচ্ছে শিক্ষা। প্রতিটি ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীকে প্রকৃত শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, করোনা একটা শিক্ষা দিয়ে গেছে মানুষকে, ধন সম্পদ কোনো কিছু কাজে লাগে না। অর্থ সম্পদ কোনো কিছু কাজে লাগে না। মানুষকে যেমন হঠাৎ করে মরতে হয়, আবার সম্পদ বানালেও যে সেগুলো কোনো কাজেই লাগে না করোনা কিন্তু সেই শিক্ষা দিয়ে গেছে সবাইকে। কাজেই অহেতুক অর্থের পেছনে না ছুটে মানুষের জন্য কাজ করা একজন রাজনৈতিক নেতার কাজ। সেটাই মাথায় রাখতে হবে। শিক্ষিত তরুণদের চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান জানিয়ে টানা তিনবারের সরকারপ্রধান বলেন, একজন শিক্ষিত ছেলেপেলে বেকার থাকতে পারে না। সঙ্গে সঙ্গে আমাদের যুব সমাজ, তরুণ প্রজন্ম তাদের আমরা বিভিন্নভাবে উৎসাহ দিচ্ছি যে নিজে চাকরির পেছনে ঘুরে না বেড়িয়ে নিজেদের উদ্যোক্তা হতে হবে। চাকরি দেওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতে হবে। তার জন্য যা যা সুযোগ আমরা তা সৃষ্টি করে দিয়েছি।

একটি মহল দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, তারা তো দেশের মানুষের ভাগ্যের কথা চিন্তা করে না। কাজেই তারা ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত থাকে। কিন্তু নীতি আদর্শ নিয়ে চললে পরে, আর সৎ পথে চললে পরে যে কোনো বাধা অতিক্রম করা যায়। সেটা প্রমাণ করেছি আমরা। ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের পরিচালনায় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান বক্তৃতা করেন। এ সময় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ, অসীম কুমার উকিল, মাইনুদ্দিন হাসান চৌধুরী, ইকবালুর রহিম, এ কে এম এনামুল হক শামীম, ইসহাক আলী পান্না, অজয় কর খোকন, লিয়াকত সিকদার, নজরুল ইসলাম বাবু, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ, সিদ্দিকী নাজমুল আলম, সাইফুর রহমান সোহাগ, এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *