আ. লীগ কর্মীনির্ভর দল বলেই শেখ হাসিনাকে মাইনাস করা যায়নি

আ. লীগ কর্মীনির্ভর দল বলেই শেখ হাসিনাকে মাইনাস করা যায়নি

তাজা খবর:

নানা আয়োজনে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস পালিত হয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে সব কর্মসূচিই আয়োজিত হয় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সীমিত পরিসরে।

দিনটি উপলক্ষে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং করোনাদুর্গতদের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন আওয়ামী লীগ নেতারা। এ সময় তারা বলেন, আওয়ামী লীগ নেতানির্ভর দল নয়, কর্মীনির্ভর দল। তৃণমূলের কর্মীরাই এই দলের মূল চালিকাশক্তি। নেতারা বিভ্রান্ত হলেও কর্মীরা সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেন। আওয়ামী লীগ কর্মীনির্ভর দল বলেই ওয়ান ইলেভেনের সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার সেদিন দলের সভাপতি শেখ হাসিনাকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করতে পারেনি।

ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন মসজিদে এ দিন বাদ জুমা বিভিন্ন দল ও সংগঠনের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সেখানে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও তবারক বিতরণ করা হয়।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আলোচনা সভা করেছে। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট করেছে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা। জোটের কার্যকরী সভাপতি রফিকুল আলমের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন হালদারের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম, পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি, আওয়ামী লীগ নেতা শাহে আলম মুরাদ, অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তারিন জাহান, সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম রনি প্রমুখ।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে করোনাদুর্গত পাঁচ শতাধিক পরিবারকে ত্রাণসামগ্রী দিয়েছে মৎস্যজীবী লীগ। সংগঠনের সভাপতি সাইদুর রহমান সাঈদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শেখ আজগর নস্করের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, মৎস্যজীবী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আবুল বাসার, গফুর চোকদার, গিয়াস খান, মুহাম্মদ আলম, মমতাজ খানম, সাজ্জাদ আলম লিকু সিকদার, আবদুল আলিম, শাহজাহান হাওলাদার, কাজী মহিদুল ইসলাম মহিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

বাদ আসর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল করেছে যুবলীগ। উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল, কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদ, ডা. খালেদ শওকত আলী, রফিকুল ইসলাম, ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন, মৃনাল কান্তি জোদ্দার, তাজউদ্দিন আহমেদ, বিশ্বাস মুতিউর রহমান বাদশা, রফিকুল আলম জোয়ার্দার সৈকত, কাজী মাজহারুল ইসলাম, ডা. হেলাল উদ্দিন, সাইফুর রহমান সোহাগ, জহির উদ্দিন খসরু, জয়দেব নন্দী, মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, জাকির হোসেন বাবুল, মাইন উদ্দিন রানা প্রমুখ।

এছাড়া রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, ডেমরা, মাতুয়াইলসহ বিভিন্নস্থানে বিশেষ দোয়া, মিলাদ মাহফিল এবং এতিম-অসহায় ও দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *