একটি মিউজিক ভিডিও যেভাবে ধরিয়ে দিল ভয়ংকর খুনিকে

একটি মিউজিক ভিডিও যেভাবে ধরিয়ে দিল ভয়ংকর খুনিকে

তাজা খবর:

উত্তরবঙ্গের বগুড়া শহরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নিজের অবস্থান জানান দিতে তিনজনকে হত্যা করে হেলাল হোসেন ওরফে সেলিম ফকির ওরফে বাউল সেলিম ওরফে খুনি হেলাল (৪৫)। ওই হত্যাকাণ্ডে দায়ের করা মামলা থেকে নিজেকে আড়াল করতে ২০ বছর ধরে বাউল ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তিনি।

জানা গেছে, হত্যাকাণ্ডের পর ভৈরব স্টেশনে গান গেয়ে নতুন করে জীবন শুরু করেন এবং দ্বিতীয় বিয়ে করেন। মূলত হত্যাকাণ্ডের সাজা থেকে বাঁচতেই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ঘুরতেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রেহাই হয়নি। ২০ বছর লুকিয়েও রেহাই হলো না, কেননা এই মিউজিক ভিডিও এখন পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ কোটিবার দেখা হয়েছে।

কিশোর পলাশ বলেন, ‘ভাঙা তরী ছেঁড়া পাল’ গানের মিউজিক ভিডিও করার জন্য আমরা ঢাকার আশপাশের লোকেশন বেছে নিই। এই মিউজিক ভিডিওর ডিরেক্টর নোমান রবিন ভাই। মূলত আমাদের কোনো মডেল ছিল না। আমরা রাস্তার পাশে যাকে পাচ্ছি আমাদের গল্পের সঙ্গে মিলে গেলে তাকে অফার করছি। দেখবেন, আমাদের গানে একজন মুচি, রাস্তার মানুষ ও ওই বাউলশিল্পী, মানে যিনি সিরিয়াল কিলার, আসলে উনি যে সিরিয়াল কিলার; সর্বোপরি লোকটি যে একজন খারাপ মানুষ সেটা কোনোভাবেই বোঝা আমাদের পক্ষে সম্ভব ছিল না।’

কিশোর পলাশ বলেন, ‘আমরা ওই দিন নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনের আশপাশে শুটিং করছিলাম। হঠাৎ বাউল সেলিমকে দেখতে পাই রেললাইন দিয়ে কোথায় যেন হেঁটে যাচ্ছেন। মনে হলো লোকটাকে মিউজিক ভিডিওতে সামান্য সময়ের জন্য ধরতে পারলে ভালো হতো। যে ফোক, কিছুটা আধ্যাত্মিক ধরনের গান। ওনাকে বললাম, তিনি এককথায় রাজি হয়ে গেলেন। আমরা শুটিং করলাম। এই শুটিংয়ের ঘটনা পাঁচ বছর আগের, আর এই মুহূর্তে এসে জানলাম, লোকটা সিরিয়াল কিলার। আমার এমন একটা ভাইরাল গানে খুনি, ভাবতেই কষ্ট হচ্ছে।’

কিশোর পলাশ একদিক থেকে কিছুটা সন্তোষ প্রকাশও করলেন। বললেন, ‘শুনেছি আমার ভিডিওর সূত্র দিয়ে এই সিরিয়াল কিলারকে ধরা হয়েছে। এটা অবশ্য একদিক থেকে কল্যাণকর কাজ বটে। একজন অপরাধী ধরা পড়ল। ১৬ কোটি মানুষের দেশে একটা ভিডিও যদি সাড়ে চার কোটি মানুষ দেখে, তাহলে নিশ্চয়ই কিছু মানুষের চোখ অবশ্যই ফাঁকি দেওয়া সম্ভব না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *