করোনা-ডেঙ্গু রোধে ৩০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বিশেষ থোক বরাদ্দ

করোনা-ডেঙ্গু রোধে ৩০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বিশেষ থোক বরাদ্দ

তাজা খবর:

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলা, মশক নিধন তথা ডেঙ্গু প্রতিরোধ এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম সম্পাদনের লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামের নির্দেশনায় দেশের সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাসমূহের জন্য মোট ৩০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বিশেষ থোক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এরমধ্যে ১২টি সিটি করপোরেশনের জন্য ১৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা ও ৩২৮টি পৌরসভার জন্য ১৪ কোটি ১৩ লাখ টাকা অবমুক্ত করে বৃহস্পতিবার (১৪ মে) স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে অফিস আদেশ জারি করা হয়।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব এ কে এম মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে বলা হয়, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ‘সিটি করপোরেশনের উন্নয়ন সহায়তা’ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের অনুমোদিত বিভাজন অনুযায়ী ‘বিশেষ থোক বরাদ্দ (মন্ত্রীর অভিপ্রায় অনুযায়ী)’ উপখাত থেকে ১২টি সিটি করপোরেশনের অনুকূলে ১৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা প্রদান করা হলো।

এরমধ্যে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ, চট্টগ্রাম এবং গাজীপুর সিটি করপোরেশনের জন্য দুই কোটি টাকা করে, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের জন্য এক কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং খুলনা, রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট, কুমিল্লা, রংপুর ও ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের জন্য এক কোটি টাকা বিশেষ থোক বরাদ্দ দেওয়া হয়।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব ফারজানা মান্নান স্বাক্ষরিত পৃথক অফিস আদেশে বলা হয়, প্রশাসনিক মন্ত্রণালয়/বিভাগকে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন বাজেটের ‘বিশেষ থোক (মন্ত্রীর অভিপ্রায় অনুযায়ী)’ উপখাত হতে ডেঙ্গু ও কোভিড-১৯ মোকাবিলার নিমিত্তে জীবাণুনাশক ও সুরক্ষা সামগ্রী ক্রয়ের পৌরসভাসমূহের জন্য ১৪ কোটি ১৩ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হলো।

এরমধ্যে জেলা সদরের ‘ক’ শ্রেণীর পৌরসভার জন্য পাঁচ লাখ ৫০ হাজার টাকা, অন্যান্য ‘ক’ শ্রেণীর পৌরসভার জন্য চার লাখ ২৫ হাজার ঢাকা, ‘খ’ শ্রেণীর পৌরসভার জন্য চার লাখ টাকা এবং ‘গ’ শ্রেণীর পৌরসভার জন্য তিন লাখ ৫০ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র তথ্য অফিসার মাহমুদুল হাসান জানান, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হবার পর বিভিন্ন খাতে অব্যবহৃত ও বেঁচে যাওয়া টাকা সমন্বয় করে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহের অনুকূলে ইতোপূর্বে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে ২৫ মার্চ ৩৩ কোটি দুই লাখ টাকা এবং ২৬ এপ্রিল ৫২ কোটি ২৫ লাখ টাকা বিশেষ বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *