ক্লাবে ঢুকেই নাসিরকে বেরিয়ে যেতে বলেছিলেন পরীমনি

ক্লাবে ঢুকেই নাসিরকে বেরিয়ে যেতে বলেছিলেন পরীমনি

তাজা খবর:

সাভারে অবস্থিত ঢাকা বোট ক্লাবের ভেতরে মদ্যপান ও ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদের সঙ্গে চিত্রনায়িকা পরীমনির আচরণের কিছু দৃশ্য ধরা পড়েছে ভিডিও ফুটেজে। গত ৯ জুন রাতে ক্লাবের ভেতরের একটি ফুটেজে ধরা পড়েছে এই দৃশ্যে।

সেখানে দেখা যাচ্ছে, ক্লাবের একটি টেবিলে বসে মদ্যপান করছেন পরীমনি। সঙ্গে ছিলেন অমি ও জিমিও। এ সময় উত্তেজিত পরীমনিকে শান্ত করার চেষ্টা করেন ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদ। জবাবে নাসির মাহমুদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন পরীমনি। নাসিরকে বেরিয়ে যেতেও বলেন তিনি।

চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টায় মামলায় আলোচনায় আসেন বোট ক্লাবের সাবেক নির্বাহী সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও ক্লাবটির আরেক সদস্য তুহিন সিদ্দিকী অমি।

পরে ১৪ জুন তাদের মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। সেই রাতে ক্লাবের ভেতরে কী হয়েছিল তা অনেকের কৌতূহলের কারণ ছিল।

এবার ঢাকা বোট ক্লাবের ভেতরের নতুন একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। সেই রাতে নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও পরীমনির ঘটনা প্রকাশ পেয়েছে। ওই ভিডিওটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও পর্যবেক্ষণ করছে।

একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেল ওই ভিডিটির ক্লিপস প্রকাশ করেছে। এতে দেখা গেছে, পরীমনি ক্লাবে ঢুকেই বারের সামনে চেয়ারে বসে তার সঙ্গে থাকা অমি ও জিমিকে নিয়ে মদ্যপান করছেন।

এ সময় দূর থেকে বোট ক্লাবের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য নাসির ইউ মাহমুদ তাকে মদ্যপান করতে নিষেধ করেন। তখন পরীমনি একটি বোতল নিতে চাইলে নাসির ইউ মাহমুদ বলেন, আপনি কোনো বিদেশি মদ নিতে পারবেন না।

ভিডিওতে দেখা যায়, পরীমনিকে উদ্দেশ করে নাসির বলেন, হোয়াট ইজ দিস, প্লিজ স্টপ, ডোন্ট ডু দিস, ইটস টু মাচ। নাসিরের উত্তরে পরীমনি বলেন, অ্যাই যা…যা! বেরিয়ে যা!

ঘটনার পরেই সাংবাদিকদের নাসির উদ্দিন মাহমুদ বলেছিলেন, মদ্যপানে বাধা পেয়েই বেপরোয়া হয়ে ওঠেন পরীমনি। মদ না পেয়ে নাসির ইউ মাহমুদের দিকে বোতল ছুড়ে মারেন।

পরে গভীর রাতে জিমির কোলে চড়ে পরীমনিকে নামতে দেখা যায়। পরে সেখান থেকে তিনি রাতেই বনানী থানায় অভিযোগ দিতে আসেন। পরে পুলিশ সদস্যরা তাকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান।

এর পর (১৩ জুন) রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ করেন পরীমনি। পরের দিন সাভার থানায় মামলা করেন পরীমনি। পরে ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। পরে তাদের মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। সেই মামলায় নাসির ও অমি সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। বাকি তিন নারীর তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

সূত্র:ডেইলি বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *