চা বানালেন আতিকুল

চা বানালেন আতিকুল

নিউজ ডেস্ক:

জিনস প্যান্ট ও হালকা নীল শার্টের ওপর জলপাই রঙের সোয়েটার পরা ফরসা চেহারার গোঁফওয়ালা মানুষটি দোকানে চা বানাচ্ছেন। পরে সেই বানানো চা কয়েকজনকে খাওয়ালেন তিনি। চা খাওয়ানো শেষে দোকানিকে উল্টো ৮০০ টাকাও দিলেন নতুন এই ‘চা বিক্রেতা’। সোমবার রাজধানীর আফতাবনগর এলাকায় এমন ঘটনা ঘটে।

যিনি এই ঘটনা ঘটিয়েছেন, তিনি হলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে স্থানীয় ইয়াসিনের চা-শিঙাড়ার দোকানে বসে বড় সসপ্যান থেকে দুধ আর কেটলি থেকে লিকার ঢেলে চা বানান তিনি। পরে তাঁর বানানো চা স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি ও তাঁর দলীয় নেতা-কর্মীকে খাওয়ান।

সোমবার বিকেলে বাড্ডা আলাতুন্নেছা মাধ্যমিক উচ্চবিদ্যালয়ে সভা শেষ করে আফতাবনগর এলাকায় ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে যান আতিকুল ইসলাম। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক মতবিনিময় করেন এই মেয়র প্রার্থী। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নির্বাচনী প্রচার শেষে বের হয়ে আফতাবনগরে সড়কের পাশে একটি ছোট চায়ের দোকানে গিয়ে চা বানিয়ে খাওয়ান কয়েকজনকে।

এ সময় চা বিক্রেতার মতো ‘এই চা হবে, চা…চা…, চা খাবেন চা…’ বলে আশপাশের লোকজন ও দলীয় নেতা-কর্মীদের চা পানের আহ্বান জানান আতিকুল ইসলাম। তাঁর সঙ্গে ছিলেন ঢাকা উত্তরে আওয়ামী লীগ–সমর্থিত ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মাসুম গণি ও ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম। তাঁরাও মেয়র প্রার্থীর বানানো চা পান করে বেশ আনন্দ অনুভব করেন।

নির্বাচনী প্রচারণায় ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য বিভিন্ন প্রার্থী নানা নাটকীয়তার আশ্রয় নেন। এতে বেশ আনন্দও পায় সাধারণ মানুষ। চা দোকানি ইয়াসিনের কাছেও বিষয়টি অভিনব। মেয়র প্রার্থী আতিকুল দোকানে বসে চা বানাতে চাইলে নিজের জায়গাটি ছেড়ে দেন ইয়াসিন। আর এ ঘটনায় তিনি বেশ আপ্লুত বোধ করেন। আরও বেশি খুশি হন যখন চা বানিয়ে, খেয়ে ও খাইয়ে আতিকুল ইসলাম তাঁর দাম মেটান অনেক বেশি। আট কাপ চায়ের জন্য দোকানিকে ৮০০ টাকা দিয়েছেন মেয়রপ্রার্থী।

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে খিলগাঁওয়ের তালতলায় নির্বাচনী প্রচার চালান আতিকুল ইসলাম ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। এ ছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ–সমর্থিত ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী লিয়াকত আলী (মিষ্টি কুমড়া প্রতীকে) এবং ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদপ্রার্থী শাখাওয়াত হোসেন (রেডিও প্রতীকে) ভোট চান। এ সময় আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এস এ মান্নান উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *