ছাত্রদল বনাম বিএনপি: আরোও ঘনীভূত হচ্ছে দলীয় কোন্দল

ছাত্রদল বনাম বিএনপি: আরোও ঘনীভূত হচ্ছে দলীয় কোন্দল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বয়সসীমা না করে ধারাবাহিক কমিটি গঠন করার দাবি মেনে নিতে বিএনপিকে দুই দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে ছাত্রদল। এই সময়ের মধ্যে দাবি না মানলে কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন সংগঠনটির নেতারা। উক্ত আল্টিমেটের বিপরীতে, তাদের দাবিকে ‘অযৌক্তি’ বলে মানা সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। এদিকে কিছুদিন আগেই দলীয় এক বৈঠকে ছাত্রদলের বিরুদ্ধে ‘কঠোর’ হবার হুঁশিয়ারি করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেছেন, ‘এরকম করলে অছাত্রদের কেবল ছাত্রদল না, বিএনপিতেই রাখবো না আমরা!’ আর গয়েশ্বরের এই হুশিঁয়ারিরই পর ছাত্রদল বনাম বিএনপির কোন্দলের আগুনে যেন ঘি পড়েছে।

গত ২০ জুন বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন ছাত্রদলের নেতারা। এই সময় সদ্য বিলুপ্ত কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান আসাদ গয়েশ্বরের উক্ত বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে আরো কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের যৌক্তিক দাবি মানতে হবে। আগামী শনিবার (২২ জুন) পর্যন্ত আল্টিমেটাম দিচ্ছি। এ সময়ের মধ্যে দাবি না মানলে আগামী রবিবার (২৩ জুন) থেকে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে। এ জন্য দলের দালাল, যারা আমাদের অছাত্র কিংবা বয়স্ক বলার দুঃসাহস দেখায়, তাদের সিন্ডিকেট দায়ী থাকবে।’

রবিবার থেকে কী ধরণের কর্মসূচি আসতে পারে জানতে চাইলে ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির সহ-সভাপতি এজমল হোসেন পাইলট বলেন, ‘আমাদের দাবির সুষ্ঠু সমাধান না হলে পরবর্তী কর্মসূচি ঠিক করবো। আমরা বিএনপিতে না থাকলে, বিএনপি বলেই কিছু থাকবে না দেশে। সে দায়িত্ব আমরা নিচ্ছি।’

ছাত্রদল নেতাদের এসব দাবির ব্যাপারে জানতে চাইলে বিএনপি নেতারা বলছেন, ‘বয়স্করা’ ছাত্রদল করবেন, এটা কোনও যৌক্তিক দাবি নয়। আন্দোলনকারীরা সেই অযৌক্তিক দাবিই জানাচ্ছেন। ফলে তাদের দাবি মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। তাদের উচিত, ‘অযৌক্তিক’ দাবি থেকে সরে এসে নিজেরে রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের স্বার্থে এখনই বিএনপির শাখা সংগঠনগুলোর রাজনীতিতে যুক্ত হওয়া’।

প্রসঙ্গত, গত ৩ জুন ছাত্রদলের মেয়াদ-উত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দিয়ে ৪৫ দিনের মধ্যে কাউন্সিলের মাধ্যমে সংগঠনটির নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের ঘোষণা দেয় বিএনপি। কাউন্সিলে প্রার্থী হওয়ার জন্য ২০০০ সাল-পরবর্তী যেকোনও বছরে এসএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। আর তাদের হতে হবে বাংলাদেশের কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী। কিন্তু সদ্য বিলুপ্ত কমিটির একটি অংশ এসব শর্ত বাতিল করে বয়সসীমা না করে কমিটির দাবিতে গত ১১ জুন থেকে আন্দোলন করে আসছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *