দক্ষিণ এশিয়ায় `অর্থনৈতিক শক্তি` হয়ে উঠছে বাংলাদেশ

দক্ষিণ এশিয়ায় `অর্থনৈতিক শক্তি` হয়ে উঠছে বাংলাদেশ

তাজা খবর:

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের একটি নিবন্ধে বলা হয়েছে, গত এক দশকে রপ্তানি আয়ের ওপর ভর করে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় ‘চাঙা অর্থনীতির উদাহরণ’ সৃষ্টি করেছে। ‘বাংলাদেশ ইজ বিকামিং সাউথ এশিয়াস ইকোনমিক বুল কেইস’ শিরোনামে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের হংকংভিত্তিক আর্থিক বাজার বিশ্লেষক মাইক বার্ডের লেখা ওই নিবন্ধে বাংলাদেশের এই অগ্রযাত্রাকে দক্ষিণ কোরিয়া, চীন ও ভিয়েতনামের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। তিনি লিখেছেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের এই সাফল্যের মডেলের সঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এসব উদীয়মান অর্থনীতির সাফল্যের বিভিন্ন পর্যায়ের সঙ্গে মিল রয়েছে।’

গত ২৬ ফেব্রম্নয়ারি স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ পায় বাংলাদেশ। পরদিন সংবাদ সম্মেলনে দেশবাসীকে সেই সুখবর জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নিবন্ধে উন্নয়নশীল দেশের সুপারিশ অর্জনের পেছনে এদেশের বিশাল তরুণ জনগোষ্ঠী, মজুরির ক্ষেত্রে ধারাবাহিক প্রতিযোগিতামূলক সুবিধা এবং দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় নারী-শ্রমগোষ্ঠীর দৃঢ় ও বর্ধনশীল অবস্থানকে তুলে ধরা হয়েছে। তবে ভিয়েতনাম বা কম্বোডিয়ার তুলনায় বাংলাদেশ এখনো যথেষ্ট পিছিয়ে, সে তথ্যও তুলে ধরা হয়েছে। বলা হয়েছে, গত এক দশকে বাংলাদেশের তুলনায় এ দুই দেশ রপ্তানি থেকে যথাক্রমে তিনগুণ ও দ্বিগুণ আয় করেছে।

বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে সাফল্যের প্রসঙ্গ টেনে নিবন্ধে বলা হয়েছে, গত এক দশকে প্রতিবেশী ভারত ও পাকিস্তানের তুলনায় রপ্তানি আয়ে অভাবনীয় উলস্নম্ফন দেখিয়েছে বাংলাদেশ। বিকাশমান তৈরি পোশাক শিল্প খাতের ওপর ভর করে এই সময় বাংলাদেশের রপ্তানি আয় ডলারের হিসাবে ৮০ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে একই সময়ে ভারত ও পাকিস্তানের রপ্তানি কমেছে।

তবে তৈরি পোশাক শিল্প খাতের ওপর অতিনির্ভরতা এবং হার্ভার্ডের করা ‘ইকোনমিক কমপেস্নক্সিটি’ সূচকে বাংলাদেশের পিছিয়ে থাকার বিষয়টিও চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখানো হয়েছে নিবন্ধে। এসব ছাপিয়ে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হওয়া বাংলাদেশের জন্য ভবিষ্যতে আরও সাফল্য অর্জনের ইঙ্গিত বহন করছে বলে মতপ্রকাশ করা হয় ওই নিবন্ধে।

জাতিসংঘের নিয়ম অনুযায়ী, কোনো দেশ পরপর দুটি ত্রিবার্ষিক পর্যালোচনায় উত্তরণের মানদন্ড পূরণে সক্ষম হলে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের চূড়ান্ত সুপারিশ পায়। বাংলাদেশ দ্বিতীয়বারের মতো মানদন্ডগুলো অর্জন করেছে।

১৯৭৫ সাল থেকে স্বল্পোন্নত দেশের কাতারে থাকা বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে সিডিপির সব শর্ত পূরণ করে ২০১৮ সালে। সিডিপি তিনটি সূচকের ভিত্তিতে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের বিষয়টি পর্যালোচনা করে। তিনটি সূচকেই বাংলাদেশ শর্ত পূরণ করে অনেক এগিয়ে গেছে।

উন্নয়নশীল দেশ হতে একটি দেশের মাথাপিছু আয় হতে হয় কমপক্ষে ১২৩০ মার্কিন ডলার, ২০২০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ছিল ১৮২৭ ডলার। মানবসম্পদ সূচকে উন্নয়নশীল দেশ হতে ৬৬ পয়েন্টের প্রয়োজন; বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ৭৫.৩।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *