পায়রা বন্দরে বদলাবে দক্ষিণাঞ্চল

পায়রা বন্দরে বদলাবে দক্ষিণাঞ্চল

তাজা খবর:

সরকারের মেগা প্রকল্পের অন্যতম পায়রা বন্দর হবে দেশের বৃহত্তম গভীর সমুদ্রবন্দর। পূর্ণাঙ্গ বন্দর বাস্তবায়নে চলছে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ। পায়রা বন্দরকে ঘিরে দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের যোগাযোগ নিবিড় করতে রেললাইন, ফোর লেন মহাসড়ক বাস্তবায়নের প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। পদ্মা ও লেবুখালী সেতু চালু হলে চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরের চেয়ে রাজধানীসহ সারা দেশে পায়রা বন্দর থেকে পণ্য পরিবহনের সময় ও অর্থ দুটোই সাশ্রয় হবে ব্যবসায়ীদের। এলাকাজুড়ে গড়ে উঠবে ভারী শিল্পপ্রতিষ্ঠান। কর্মসংস্থান হবে লাখ লাখ মানুষের।

বন্দরের সংযোগ স্থাপনে ও পণ্য পরিবহনের জন্য ছয় লেন মহাসড়ক, ছয় লেনের ব্রিজ নির্মাণ, বিমানবন্দর, ইপিজেড নির্মাণের মতো প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন পায়রা বন্দর ২০২৩ সাল নাগাদ পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপ নেবে। ইতিমধ্যে কয়লা নিয়ে বন্দরে এসেছে শতাধিক জাহাজ। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন শেষে ব্যবসা বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দু হবে দক্ষিণাঞ্চল। দেশের অর্থনীতিতে নতুন মেরুকরণ হবে। বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি দিকনির্দেশনায় পায়রা পূর্ণাঙ্গ বন্দরের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার টিয়াখালী ইউনিয়নে ১৬ এর জমির ওপর প্রাথমিকভাবে ২০১৩ সালের ১৯ নভেম্বর পায়রা বন্দরের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে টিয়াখালী ও একই উপজেলার রাবনাবাদ চ্যানেল সংলগ্ন লালুয়া ইউনিয়নে আরও ৩২ একর জমি অধিগ্রহণ করে শুরু হয় পায়রা পূর্ণাঙ্গ বন্দরের বাস্তবায়নের কর্মযজ্ঞ। এরপর ২০১৬ সাল থেকে সীমিত পরিসরে বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম শুরু হয়। ২০১৯ সালে মাদার ভেসেল থেকে শুরু হয় নিয়মিত পণ্য খালাস। এ পর্যন্ত ১১২টি মাদার ভেসেল পণ্য খালাস করেছে পায়রা বন্দরে। এতে সরকারের আয় হয়েছে ২৬৪ কোটি টাকা। সূত্র আরও জানায়, পূর্ণাঙ্গ পায়রা বন্দর বাস্তবায়নে সরকারের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে বিস্তারিত মহাপরিকল্পনা। এর মধ্যে বন্দর কর্তৃপক্ষ জমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পুনর্বাসন, রাবনাবাদ চ্যানেল সার্ভে করা, বন্দরে কীভাবে জাহাজ আসবে তা নির্ধারণ, রক্ষণাবেক্ষণ ড্রেজিং, ক্যাপিটাল ড্রেজিং, মেকানিক্যাল বিভাগ, পায়রা মাল্টিপারপাস টার্মিনাল নির্মাণসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ বাস্তবায়ন করবে। ইতিমধ্যে বন্দরের দাফতরিক ভবনগুলোর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। জেটি, প্রশাসনিক ভবন, ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট, ব্যাংক ভবন, কর্মকর্তা স্টাফ কোয়ার্টার, কাস্টমস হাউস নির্মাণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও আরও কিছু ভবনের কাজ শেষ পর্যায়ে। রাবনাবাদ চ্যানেলের রক্ষণাবেক্ষণ ড্রেজিং চলছে। এয়ারপোর্ট নির্মাণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে পর্যটন মন্ত্রণালয়কে, পূর্ত সংশ্লিষ্ট কাজ করবে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয়কে শিপইয়ার্ড, বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়কে বৈদ্যুতিক কাজের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, পায়রা বন্দর বাস্তবায়নে জমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য রাবনাবাদ চ্যানেল সংলগ্ন লালুয়া এলাকায় ৩ হাজার ৪৩২টি পরিবারের পুনর্বাসনের জন্য আবাসন নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ে ২ হাজার ৩৫০টি আবাসনের কাজ চলছে। এর মধ্যে ৫০০ পরিবারের জন্য আবাসন প্রস্তুত করা হয়েছে। ১ হাজার ৫৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের আবাসন সুবিধা নিশ্চিত করার কাজ চলছে দ্রুতগতিতে। ক্ষতিগ্রস্তদের ৪ হাজার ২০০ পরিবারকে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, হাস-মুরগি পালন, কর্মসংস্থানমূলক ও মেকানিক্যাল প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এদিকে ৪ হাজার ৫১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে বন্দরের ফার্স্ট টার্মিনাল নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলছে। বঙ্গোপসাগরের রাবনাবাদ চ্যানেলের কলাপাড়ার লালুয়া ইউনিয়নের চান্দুপাড়া এলাকার মূল বন্দর এলাকায় পায়রা বন্দরের পণ্য খালাসের জন্য নির্মাণ করা হবে অত্যাধুনিক ফার্স্ট টার্মিনাল ও মাল্টিপারপাস টার্মিনাল।

সূত্র আরও জানায়, পায়রা বন্দর এলাকায় অভ্যন্তরীণ পরিবহন ও যোগাযোগের জন্য ছয় লেন সড়কের সঙ্গে আন্ধারমানিক নদীর ওপর আরও একটি ছয় লেনের সেতু নির্মাণ করা হবে। রাজধানীসহ সারা দেশের সঙ্গে যোগাযোগ নিবিড় করতে পায়রা বন্দর এলাকা ও এর টার্মিনাল পর্যন্ত ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে ফোর লেন মহাসড়ক ও রেললাইন প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে। বন্দরের খালাসকৃত পণ্য সড়ক ও রেলপথে পরিবহন হবে রাজধানীসহ সারা দেশে। ক্যাপিটাল ড্রেজিং কাজ সম্পন্ন হলে ১০ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভিড়বে রাবনাবাদ চ্যানেলে। মাদার ভেসেল সরাসরি পায়রা মাল্টিপারপাস টার্মিনালে আসবে। মাদার ভেসেল থেকে টার্মিনালেই কনটেইনারসহ যে কোনো পণ্য সহজেই খালাস করা যাবে। ফলে চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরের চেয়ে পায়রা বন্দরে ব্যবসায়ীদের অর্থ ও সময় দুই দিক থেকেই সাশ্রয় হবে। পায়রা বন্দর হবে দেশের গুরুত্বপূর্ণ সমুদ্রবন্দর। পদ্মা সেতু ও লেবুখালী সেতু চালু হলে পায়রা বন্দরকে কেন্দ্র করে দেশ-বিদেশের সব বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হবে। দক্ষিণাঞ্চল হবে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের অন্যতম কেন্দ্র। আগামী বছর পটুয়াখালী সদর উপজেলার আউলিয়াপুরে ইপিজেড নির্মাণ কাজ শুরু হবে। গত ৩ মার্চ প্রস্তাবিত পটুয়াখালী ইপিজেড ও ইনভেস্টরস ক্লাবের অগ্রগতি সভায় এ ঘোষণা দেন বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ এলাকা-বেপজা চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. নজরুল ইসলাম। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের চেয়েও বড় ইপিজেড হবে পটুয়াখালীতে। এখানে উন্নত মানের ইন্ডাস্ট্রিও হবে।

কলাপাড়া শিল্প ও বণিক সমিতি এবং পৌর ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি দিদার উদ্দিন আহমেদ মাসুম বলেন, পায়রা বন্দর প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের বন্দর। পায়রা বন্দরকে কেন্দ্র করে এখানে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ হয়েছে, শেরেবাংলা নৌ-ঘাঁটি নির্মাণ হচ্ছে, লেবুখালীতে শেখ হাসিনা সেনানিবাস স্থাপিত হয়েছে এবং লেবুখালীতে পায়রা নদীতে অত্যাধুনিক সেতু হচ্ছে, ইপিজেড নির্মাণ হতে যাচ্ছে। আগামী ১০-১৫ বছরের মধ্যে এ অঞ্চল সিঙ্গাপুরকে ছাড়িয়ে যাবে। পায়রা বন্দরকে ঘিরেই পটুয়াখালী জেলা বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অঞ্চলে পরিণত হবে। তিনি বলেন, পায়রা বন্দরকে কেন্দ্র করে এলাকায় দেশের বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠার জন্য জমি কিনেছে। বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণ হচ্ছে। পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (প্রশাসন) যুগ্ম সচিব মহিউদ্দিন আহমেদ খান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার মেগা প্রকল্পের অন্যতম পায়রা সমুদ্রবন্দর। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় পূর্ণাঙ্গ পায়রা বন্দরের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ১১২টি জাহাজ পণ্য খালাস করায় বন্দরের ২৬৪ কোটি টাকা আয় হয়েছে। ক্যাপিটাল ড্রেজিং শেষ হলে বন্দরে ৪০ হাজার মেট্রিক টন ক্ষমতাসম্পন্ন ১০ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভিড়তে পারবে। পায়রা বন্দরে ফুল অপারেশনাল কার্যক্রম শুরু হলে সরকারের বিপুল পরিমাণ অর্থ আয় হবে। পায়রা বন্দরকে ঘিরেই দক্ষিণাঞ্চলে সরকারের বহু উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হচ্ছে। জাতীয় উন্নয়নে পায়রা বন্দর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *