বিএনপির ধর্ষণ বিরোধী মানববন্ধনে এসে টাকা না পেয়ে খালেদা জিয়া-ফখরুলকে গালিগালাজ!

বিএনপির ধর্ষণ বিরোধী মানববন্ধনে এসে টাকা না পেয়ে খালেদা জিয়া-ফখরুলকে গালিগালাজ!

তাজা খবর:

সাব্বির হোসেন, কেরানিগঞ্জের একটি প্লাটিক কোম্পানিতে ক্লিনারের কাজ করে। বয়স সর্বোচ্চ ২০ হবে। মঙ্গলবার রাতে তাকে কেরানীগঞ্জের সাঈদ নামের এক ছাত্রদল নেতার সাথে কথা হয়। বলে ১০ জন লোক নিয়ে বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে সামনে যেতে হবে। দুপুরে খাওয়া-দাওয়াসহ প্রতিজনকে ১ হাজার টাকা করে দিবে। অগ্রিম হিসাবে ২ হাজার টাকা চায় সাব্বির। সেখান থেকে ৫০০ টাকা দিয়ে পরের দিন সময় মতো চলে আসার কথা বলে। এরপর সাব্বির তার কয়েকজন সহকর্মী এবং বন্ধুদের নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে চলে আসে। সেখানে সরকার বিরোধী স্লোগান দেয়ার পাশাপাশি তাদের যে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল, সবই পালন করলো। কিন্তু অনুষ্ঠান শেষে সাঈদের কাছে টাকা চাইলে, বলে তোমরা একটু দাঁড়াও আমি টাকা তুলে আনছি বুথ থেকে। এ কথা বলেই চম্পট। এরপর দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করার পর ফোন করলে সাঈদের ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর যে মুখে খালেদা জিয়ার পক্ষে স্লোগান দিয়েছিল, সে মুখেই অশ্রাব্য গালি দিতে শুরু করে। পাশাপাশি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল এবং আমান উল্লাহ আমানের নাম ধরে গালিগালাজ শুরু করে। এ প্রতিবেদকের কাছে এভাবেই নিজের কথাগুলো জানাচ্ছিলেন সাব্বির। লিকলিকে ছেলেটা তখন ক্ষুধার্ত। বন্ধুরা বারবার তাকে বলছে, তোর কথায় আসছি, সাব্বির। তুই আমাদের টাকা দিবি। জানতে চাওয়া হলো, সাব্বিরের মাসিক আয় কত? সে জানালো, ৬ হাজার টাকা মাত্র।

এদিকে, বুধবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি ধর্ষণ বিরোধী মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। সেখানে ব্যাপক লোকের সমাগম ঘটিয়ে করোনার মধ্যে স্বাস্থবিধি না মেনেই। এ নিয়ে বিএনপির অনেক নেতারা তৃপ্তির ঢেঁকুড় তুললেও টাকা না পেয়ে অভাবী ছেলেগুলো কষ্ট নিয়ে ফিরে গেছে।

সরকার ক্ষমতায় থাকার সব অধিকার হারিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই– সরকার ক্ষমতায় থাকার সব অধিকার হারিয়েছে। তাদের ক্ষমতায় থাকার কোনো ধরনের কারণ নেই।

মানববন্ধনে নোয়াখালীতে নারীকে নির্যাতনের পর ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার নিন্দা জানিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে যে লোমহর্ষক ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে, তা সব জাতি শুধু নয়; আমার মনে হয় বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়েছে। শুধু নোয়াখালীর ঘটনাই নয়, গত কয়েক মাসে আপনারা লক্ষ্য করেছেন, ধর্ষণের মহোৎসব শুরু হয়েছে। নারীর শ্লীলতাহানি, নারীর ওপর নির্যাতন– এটি এখন এই অবৈধ সরকারের নিয়মিত ব্যবস্থায় পরিণত হয়েছে।

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করতে গিয়ে এখনও বন্দি আছেন। আজকে তিনি অসুস্থ। কিন্তু তার যেটি প্রাপ্য সেটি তাকে দেয়া হচ্ছে না। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান… তিনি আজ দেশের বাইরে। তাকে ফিরিয়ে আনতে হলে আমাদের আজ অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *