ভেজালবিরোধী অভিযানে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

ভেজালবিরোধী অভিযানে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

কেবল মনুষ্য খাদ্যে নয়, যেকোনো প্রাণীর খাদ্যে ভেজাল রোধসহ নানান অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার বর্তমান সরকার। প্রতিনিয়ত চলছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান। অভিযানে দায়ী প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিদের জরিমানাসহ কারাদণ্ড দেয়া হচ্ছে।

এর ধারাবাহিকতায় শনিবার (২৯ জুন) রাজধানীর ডেমরা এলাকায় ট্যানারির বর্জ্য দিয়ে পোল্ট্রি ও ফিশ ফিড তৈরি করার দায়ে ৩২ লাখ টাকা জরিমানাসহ ৩টি কারখানা সিলগালা করেছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া ১৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলমের তত্ত্বাবধায়নে এ অভিযান চালানো হয়। তিনি বলেন, ‘ট্যানারির বর্জ্য দিয়ে পোল্ট্রি/ফিশ ফিড তৈরি করার দায়ে ১৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ডেমরায় ৩টি কারখানা সিলগালা করা হয়েছে। এসব কারখানা থেকে ছয় হাজার টন বিষাক্ত পোল্ট্রি/ফিশ ফিড জব্দ করা হয়।

এদিকে ঝিনাইদহের শৈলকূপায় ৪টি ওষুধ ফার্মেসিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সংরক্ষণের দায়ে ৪ ফার্মেসিকে জরিমানা করা হয়েছে। ধ্বংস করা হয় ৫০ হাজার টাকার মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ। শৈলকূপা বাজারে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযান পরিচালনার বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উসমান গনি বলেন, সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক সারা দেশের ন্যায় শৈলকূপাতেও এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আগামী ২ জুলাইয়ের পর থেকে উপজেলার প্রতিটা ফার্মেসিতে এ অভিযান পরিচালনা করা হবে। এদিকে, বুধবার এ অভিযানে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখার দায়ে খন্দকার ফার্মেসিকে ৫,০০০ টাকা, জাকির মেডিফোকে ৩,০০০ টাকা, মেসার্স এস এম ফার্মেসিকে ২,০০০ টাকা ও মাশরাফ ফার্মেসিকে ২,০০০ টাকা করে সর্বমোট ১২,০০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *