মুজিববর্ষে আধুনিকতার ছোঁয়া পশ্চিমের ২৬ রেলস্টেশনে

মুজিববর্ষে আধুনিকতার ছোঁয়া পশ্চিমের ২৬ রেলস্টেশনে

তাজা খবর:

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের ২৬টি স্টেশনকে ‘মডেল’ হিসেবে আধুনিকায়ন করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে । এতে প্রায় ১৫০ কোটি টাকা ব্যয় হবে বলে জানিয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মিহির কান্তি গুহ।

শুক্রবার (২ এপ্রিল) তিনি জানান, আগামী মাসেই টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করে কাজ শুরু হবে। সরকার মুজিববর্ষ আগামী বিজয় দিবস পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে। এর আগেই সব কাজ শেষ হবে। তিনি বলেন, যাত্রীরা যেন স্বচ্ছন্দে ট্রেনে ভ্রমণ করতে পারেন সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই স্টেশনগুলো মডেল হিসেবে তৈরি করা হচ্ছে।

তিনি জানান, মুজিববর্ষে আমরাও কিছু করতে চাই। এ চিন্তা থেকেই সারাদেশের ৫০টি স্টেশনকে ‘মডেল স্টেশন’ হিসেবে সাজানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়। এর মধ্যে ২৬টি স্টেশন পশ্চিমাঞ্চলের। তালিকা ইতোমধ্যে চূড়ান্ত করেছে প্রধান প্রকৌশলীর দপ্তর।

যে স্টেশনগুলো মডেল হবে সেগুলো হলো- টাঙ্গাইল, জামতৈল, উল্লাপাড়া, বড়াল ব্রীজ, চাটমোহর, নাটোর, সান্তাহার, রংপুর, সৈয়দপুর, পার্বতীপুর, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, ডোমার, বিরামপুর, জয়পুরহাট, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, বোনারপাড়া, বগুড়া, খুলনা, যশোর, পোড়াদহ, চুয়াডাঙ্গা ও রাজবাড়ী।

মিহির কান্তি গুহ জানান, স্টেশনগুলোতে প্ল্যাটফরম সেড বড় করার পাশাপাশি আরও উঁচু করা হবে, যাতে ট্রেনে ওঠানামা করতে যাত্রীদের সুবিধা হয়। জেলা শহরের অনেক স্টেশনেই এখন দুটি প্লাটফর্ম নেই। মডেল স্টেশন করার সময় সেগুলোতে দুটি করে প্লাটফর্ম নির্মাণ করা হবে। দুটি প্লাটফর্মে যাওয়া-আসার জন্য ফুটওভার ব্রিজও নির্মাণ করা হবে। এছাড়া প্রতিটি স্টেশনে নারী ও পুরুষের জন্য থাকবে আলাদা শৌচাগার। যাত্রীদের বসার জন্য সুন্দর জায়গার পাশাপাশি সবখানেই আধুনিকতার ছোঁয়া লাগানো হবে।

রেল কর্মকর্তারা জানান, এখন স্টেশনগুলোর ভেতরে অনেক অবৈধ দোকানপাট রয়েছে। সেগুলো কিছু থাকবে না। প্রতিটি স্টেশনের সুবিধাজনক স্থানে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ ও ফুড কর্নার থাকবে। প্রয়োজনে আরও বাড়তি স্থাপনা তৈরি করা হবে।

পশ্চিম রেলের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মডেল স্টেশনগুলোতে শৌচাগার নির্মাণের কাজটি করতে চায় ‘ওয়াটার এইড’ নামের একটি সংস্থা। সম্প্রতি রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত একটি কর্মশালায় এটি প্রায় চূড়ান্ত হয়েছে। সেখানে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ওয়াটার এইড এবং রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *