রাস্তা থেকে জিয়ার নামের ফলক নামিয়ে নিল বাল্টিমোর সিটি

রাস্তা থেকে জিয়ার নামের ফলক নামিয়ে নিল বাল্টিমোর সিটি

তাজা খবর:

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যারিল্যান্ড স্টেটের বাল্টিমোর শহরের একটি রাস্তা থেকে বাংলাদেশের সাবেক সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের নামের নামফলক সরিয়ে ফেলেছে স্থানীয় প্রশাসন।

বাল্টিমোরের ২০০ ওয়েস্ট সারাটগা স্ট্রিটে গত জুন মাসে ‘জিয়াউর রহমান ওয়ে’ নামফলক লাগানো হয়েছিল। বৃহস্প্রতিবার দুপুরে সিটির কর্মকর্তারা সেটি খুলে নিয়ে যান।

স্থানীয় বাসিন্দা এবং বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার মনসুর বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “জিয়াউর রহমান একজন ঠাণ্ডা মাথার ঘাতক। তার নামে ওই সড়কের নামকরণের পর আমরা মেয়র অফিসে আপত্তি জানিয়েছিলাম। অবশেষে সিটি মেয়র ব্র্যান্ডন এম স্কট অনুধাবন করেছেন যে এমন একজন মানুষকে এভাবে সম্মান জানানো উচিত হয়নি।“

মেয়রের নির্দেশে সিটির ট্রান্সপোর্টেশন ডিভিশনের কর্মকর্তারা ওই নামফলকটি সরিয়ে নিয়ে গেছেন বলে খন্দকার মনসুর জানান।

প্রবাসী বিএনপির নেতা-কর্মীদের উল্লাসের মধ্যে গত ২০ জুন নগর প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই নামফলক উন্মোচন করা হয়েছিল। সেটি সম্ভব হয়েছিল ম্যারিল্যান্ড স্টেট বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য এবং স্থানীয় ব্যবসায়ী মোহাম্মদ কাজলের চেষ্টায়।

নামফলক সরিয়ে নেওয়ার পর কাজলের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি টেলিফোনে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি সিটি মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে জানতে চেয়েছি বিষয়টি। সিটি ট্রান্সপোর্টেশন ডিভিশনের একজন কর্মকর্তা আমাকে বলেছেন, একটি মহল জিয়াউর রহমান সম্পর্কে নানা তথ্য দিয়েছেন এবং তারা বলেছেন যে, এই নামফলক না সরালে কমিউনিটিতে বড় ধরনের দুঃখজনক পরিস্থিতির অবতারণা হতে পারে।”

জিয়াউর রহমানের নামে এই সড়কের নামকরণ করার পর প্রবাসীদের একাংশ ক্ষোভ প্রকাশ করে বাল্টিমোর সিটি এবং ম্যারিল্যান্ড স্টেট প্রশাসনে আবেদন জানিয়েছিলেন সেটা নামিয়ে ফেলার জন্য।

ওয়াশিংটন মেট্রো এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা এবং ৩৫তম ফোবানা সম্মেলনের হোস্ট কমিটির সদস্য-সচিব শিব্বির আহমেদ বললেন, কর্তৃপক্ষ নামফলক নামিয়ে ফেলায় প্রবাসীরা ‘আনন্দিত’ হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, “বাঙালি জাতির মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ঘাতক হিসেবে জিয়াউর রহমানকে ইতিহাসের কাঠগড়ায় অবশ্যই দাঁড়াতে হবে। একদল লোক মার্কিন প্রশাসনকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করেছিলেন, আমরা লাগাতার চেষ্টায় সেটি সংশোধনে সক্ষম হলাম।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *