লাখাে মানুষের স্বপ্ন পূরণে দাঁড়িয়ে আছে রঙিন ফেরি

লাখাে মানুষের স্বপ্ন পূরণে দাঁড়িয়ে আছে রঙিন ফেরি

তাজা খবর:

জামালপুরের মাদারগঞ্জ-বগুড়ার সারিয়াকান্দি ঘাটে ফেরি চালুতে দু’পারের লাখো মানুষের মাঝে খুশির বান ডেকেছে। এরই মধ্যে মাদারগঞ্জের জামথল ঘাটে যাত্রী তুলতে অপেক্ষার শেষ প্রান্তে দাঁড়িয়ে আছে সাদা-আকাশি রঙের রঙিন ফেরি।

নূতন প্রজন্মের কাছে ফেরিতে যাত্রী পারাপার, পণ্য পরিবহণের বিষয়টি অনেকটাই কৌতূহলের মতো। তাদের ধারণা ডিজিটাল যুগে ফেরিতে কিভাবে ট্রাক, বাসসহ পণ্য নিয়ে যাবে। এসব সকল জল্পনাকল্পনার অবসান ঘটিয়ে আগামি ১২ আগস্ট উদ্বোধন হতে যাচ্ছে বহুকাঙ্ক্ষিত মাদারগঞ্জের জামথল- সারিয়াকান্দি কালিতলা নৌরুটে যমুনা নদীতে ফেরি সার্ভিস।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফেরি সার্ভিসের উদ্বোধন করবেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মাদারগঞ্জ-মেলান্দহ আসনের এমপি মির্জা আজম এবং বগুড়া-১ আসনের এমপি সাহাদারা মান্নানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ফেরিঘাট চালুর সংবাদে খুশি যমুনা নদীর দুই প্রান্তের লাখো মানুষ। ফেরি চলাচল শুরুর মধ্য দিয়ে ফের ব্যবসা বাণিজ্যসহ অন্যান্য বিষয়ের উন্নয়ন হবে বলে ধারণা এলাকাবাসীর। এরই মধ্যে জামথল ঘাটে সি-ট্রাক (ফেরি) এসে পৌঁছেছে।

জানা যায়, মাদারগঞ্জের জামথল খেয়াঘাট থেকে বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে প্রতিদিন শত শত মানুষ নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওপারে যাতায়াত করে আসছে। নৌফেরি চালু হলে এ অঞ্চলের মানুষের উৎপাদিত কৃষিপণ্য, হালকা ইঞ্জিনিয়ারিং সামগ্রীসহ অন্যান্য পণ্য স্বল্প সময় ও খরচে রাজধানীসহ আশপাশের জেলায় নিতে পারবেন। বঙ্গবন্ধু সেতু পথে যেতে না হওয়ায় রাজধানীর সঙ্গ প্রায় ৮০ কিলোমিটার পথ কমবে। দীর্ঘদিন ঝুলে ছিল মাদারগঞ্জ-সারিয়াকান্দি রুটে ফেরি সার্ভিস।

সম্প্রতি নৌরুটটি চালুর বিষরে উদ্যোগ গ্রহণ করেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় নৌপথ সি-ট্রাক (ফেরি) চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।

চলতি বছরের মে মাসে ওই রুটে ফেরি সার্ভিস চালু করতে ফেরিঘাট নির্মাণ, সড়ক যোগাযোগ স্থাপন, নাব্যতা ফেরাতে নদী খননসহ নদী সংস্কার ও উন্নয়নে প্রকল্প গ্রহণের প্রাক-সম্ভাবতা যাচাইয়ে একটি কারিগর বিশেষজ্ঞ দল জামালপুরের মাদারগঞ্জ ও বগুড়ার সারিয়াকান্দি এলাকা পরিদর্শন করেন।

সরকারের পানি ব্যবস্থাপনা প্রকল্পে পরিকল্পনা ও প্রযুক্তি সহায়তা প্রদানকারী সরকারি জাতীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিংয়ের দুই সদস্যের প্রতিনিধি দল প্রকল্পের গুরুত্ব বিবেচনা ও নানাদিক পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি এ রুটে ফেরি সার্ভিস চালুর জন্য কারিগরি দিক বিবেচনা করে সুপারিশসহ প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট দফতরে জমা দেন। প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন আইডব্লিউএমের পরামর্শক মহিউদ্দিন পাটোয়ারী। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় এ ১৬ কিলোমিটার রুটে ফেরি সার্ভিস চালুর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

বাহাদুরাবাদ -বালাসী রুটে ফেরি চলাচল বন্ধের পর বৃহত্তর ময়মনসিংহের বিভিন্ন জেলার মানুষ জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জের পরিবর্তে মাদারগঞ্জ হয়ে নৌকায় যমুনা নদী পার হয়ে বগুড়া হয়ে যাতায়াত শুরু করে। বগুড়াসহ উত্তরবঙ্গের মানুষ সারিয়াকান্দির কালীতলা বা মথুরাপাড়া ঘাট থেকে খেয়া নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওপারের জেলাগুলোতে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহণ করতেন।

কালীতলা ঘাট থেকে মাদারগঞ্জ যেতে প্রায় দুই ঘণ্টা সময় লাগে। নৌকায় জনপ্রতি ভাড়া লাগত ৬০ থেকে ৮০ টাকা।

মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এবং সি ট্রাকের ইজারাদার জাহিদুর রহমান উজ্জ্বল তালুকদার জানান, দীর্ঘদিন পর হলেও মাদারগঞ্জ-সারিয়াকান্দি নৌপথে ফেরি সার্ভিস চালু হচ্ছে। এতে এলাকার জনগণ উল্লসিত।

জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার জামথল থেকে বগুড়ার সারিয়াকান্দি খেয়াঘাট রুটে সি-ট্রাক চালু হলে ২-৩ ঘণ্টা সময় সাশ্রয় হবে। এক ঘণ্টার এ রুটে চলাচলকারী সি-ট্রাকে ২০০ যাত্রী, ২-৩টি প্রাইভেট গাড়ি, ১৫টি মোটরসাইকেল পারাপার করা সম্ভব। এতে জনপ্রতি ভাড়া হবে ১০০ টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *