শেয়ারবাজারে সূচক ৪০ মাসে সর্বোচ্চ

শেয়ারবাজারে সূচক ৪০ মাসে সর্বোচ্চ

তাজা খবর:

পুঁজিবাজারে দাপট দেখিয়ে যাচ্ছে অপেক্ষাকৃত দুর্বল মৌলভিত্তির কোম্পানির শেয়ার। বড় খাতগুলোর মধ্যে ব্যাংক ও বীমা খাতের শেয়ারগুলোর গড় বাজারদর অন্য সব খাতের তুলনায় বেশি বেড়ে কেনাবেচা হয়েছে। এতেই দেশের প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সূচক বেড়ে ৪০ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠেছে।

গতকাল মঙ্গলবার সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস শেয়ারবাজারে দাম বাড়ার ক্ষেত্রে দাপট দেখিয়েছে ব্যাংক ও আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠানগুলো। এতে প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়েছে।

সেই সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। ব্যাংকের মতো বেশিরভাগ অব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা লিজিং কোম্পানির শেয়ারের দাম বাড়ার প্রবণতা লেনদেনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। প্রায় সব কটি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বাড়ার ইতিবাচক প্রভাব পড়ে সার্বিক শেয়ারবাজারে। ফলে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে সব খাত মিলে ২১২টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১২৯টির। ৩২টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ায় দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৫৭ পয়েন্ট বেড়ে ছয় হাজার ২৬৬ পয়েন্টে উঠে এসেছে, যা ২০১৮ সালের ৭ জানুয়ারির পর সর্বোচ্চ। ২০১৮ সালের ৭ জানুয়ারি সূচকটি ছিল ৬ হাজার ২৬৮ পয়েন্টে।

প্রধান মূল্য সূচকের বড় উত্থানের পাশাপাশি বেড়েছে ডিএসইর অপর দুই সূচক। এর মধ্যে বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ১৪ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ২৭৩ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইর শরিয়াহ্ সূচক সাত পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ৩৫৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সূচকের এই দিনে ডিএসইতে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণও। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৬৬৮ কোটি ৫১ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় এক হাজার ৫৯৯ কোটি ২১ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৬৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয় বেক্সিমকোর শেয়ার। কোম্পানিটির ১৮১ কোটি ১৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা পাওয়ার গ্রিডের ৫৭ কোটি ৭৩ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ৪৭ কোটি সাত লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে লাফার্জহোলসিম। এ ছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে সাউথইস্ট ব্যাংক, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, ফরচুন সুজ, অ্যাডভেন্ট ফার্মা, কেয়া কমমেটিকস এবং আমান ফিড। অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য সূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ১৭৯ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৫৭ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৬৫টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৬৫টির এবং ২৭টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *