অব্যাহত থাকার পূর্বাভাস

শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকার পূর্বাভাস

তাজা খবর:

দেশের উত্তরাঞ্চলে রংপুর বিভাগ এবং রাজশাহী, পাবনা, নওগাঁ, চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। প্রচণ্ড শীতে এসব অঞ্চলে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা

রাজধানী ঢাকার জীবনযাত্রায় তীব্র শীতের প্রভাব পড়েছে। শনিবার দুপুর পর্যন্ত সূর্যের দেখা মেলেনি। একইসঙ্গে পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৮ থেকে ১২ মাইল বেগে বইছে বাতাস। তাতে নগরীতে শীত আরও জেঁকে বসেছে।

ঘন কুয়াশার কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সূর্যের দেখা মিলছে না। ব্যতিক্রম নয় রাজধানীও। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঢাকায় সূর্য উঁকি দেয়নি।

শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৭৮ শতাংশ।

ঢাকায় আজ সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৫টা ৩১ মিনিটে এবং আগামীকাল ঢাকায় সূর্যোদয় ভোর ৬টা ৪৩ মিনিটে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, কয়েক দিন ধরে কুয়াশার কারণে সারা দেশে গড় তাপমাত্রা ছয় থেকে আট ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমে গেছে। রাজধানী ঢাকায় কমেছে ছয় ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় রংপুর বিভাগ এবং রাজশাহী, পাবনা, নওগাঁ, চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জেলা মৃদু শৈত্যপ্রবাহের কবলে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়, ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর ১৩ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল ঢাকার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় কক্সবাজারের টেকনাফে, ২৬ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এছাড়া নওগাঁর বদলগাছীতে ৮ দশমিক ৯, সৈয়দপুরে ৯, তেঁতুলিয়ায় ৯ দশমিক ৩, চুয়াডাঙ্গায় ৯ দশমিক ৫, রাজশাহীতে ৯ দশমিক ৬, ঈশ্বরদীতে ৯ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার বুলেটিনে বলেছে, আগামী ৭২ ঘণ্টা সারাদেশে সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। তবে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে।

মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারা দেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। এই কুয়াশা কোথাও কোথাও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। কুয়াশার কারণে বিমান চলাচল, অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন ও সড়ক যোগাযোগ সাময়িকভাবে বিঘ্নিত হতে পারে। অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে।

আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থায় বলা হয়েছে, উপমহাদেশীয় উচ্চ চাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এবং বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে, যার বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *