সাভারের আশুলিয়ায় বহুতল ভবনে স্বামী, স্ত্রী ও সন্তানের গলা কাটা লাশ

তাজা খবর:

ঢাকা জেলার সাভারের আশুলিয়ায় ভাড়া বাসার ফ্ল্যাট থেকে স্বামী-স্ত্রী ও শিশুসহ একই পরিবারের তিনজনকে জবাই করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাত ১০টার দিকে জামগড়া ফকির বাড়ির মোড় এলাকার মেহেদী হাসানের মালিকানাধীন ৬ তলা ভবনের ৪ তলার একটি ফ্ল্যাট থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন, ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ থানার লোহাগড়া গ্রামের মৃত জহির উদ্দিনের ছেলে মোক্তার হোসেন (৫০), তার স্ত্রী শাহিদা বেগম (৪০) ও তাদের ছেলে মেহেদী হাসান জয় (১২)। শাহিদার গ্রামের বাড়ি রাজশাহী জেলায়। স্বামী-স্ত্রী দুজনেই আশুলিয়ায় পৃথক পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আজ শনিবার সন্ধ্যায় ফ্ল্যাট থেকে দুর্গন্ধ আসায় আশপাশের বাসিন্দাদের সন্দেহ হলে তারা দরজায় ঠেলা দিয়ে দেখতে পান ফ্ল্যাটের দরজা খোলা। পরে ঘরের বিছানার ওপর মা ও ছেলের রক্তমাখা মরদেহ দেখতে পান তারা। পরে বাড়ির মালিক পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ ওই ফ্ল্যাটের আরেক রুমে আরেকটি মরদেহ খুঁজে পায়। ধারণা করা হচ্ছে এটি স্বামীর মরদেহ।

নিহতের পাশের ফ্ল্যাটের গার্মেন্টস শ্রমিক ভাড়াটিয়া আঁখি আক্তার জানান, মোক্তার তার পরিবার নিয়ে প্রায় ৭-৮ বছর ধরে এই বাসার দুই রুমের একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন। তারা দুজনেই আলাদা পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। তবে ফ্ল্যাটের অন্যদের সাথে তেমন পরিচয় তাদের ছিলো না। আজ সন্ধ্যায় চতুর্থ তলার মোক্তারদের ফ্ল্যাট থেকে দুর্গন্ধ পান পাশের ফ্ল্যাটের ভাড়াটিয়া। এসময় তাদের ফ্ল্যাটের বাইরের দরজা ভেড়ানো অবস্থায় ছিলো। পরে ভিতরে গিয়ে একটি কক্ষের বিছানায় মা ও তার ছেলে জয়ের লাশ ও আরেকটি কক্ষে মোক্তারের হাত বাঁধা গলাকাটা লাশ দেখতে পাই। আমিই পুলিশের লাশ সনাক্ত করি।

আরেক ভাড়াটিয়া আফরোজা বেগম জানান, আমরা তেমন কিছু জানি না। আজ দুর্গন্ধ পেয়ে সবাই এসে দেখে এই অবস্থা। প্রথমে জয় ও তার মায়ের লাশ সবাই দেখতে পেলেও পরে আরেক কক্ষে জয়ের বাবা মোক্তারের লাশ দেখতে পায় পুলিশ।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জোহাব আলী বলেন, ‘স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে বিছানার ওপর মা ও ছেলে দুজনের লাশ দেখতে পেয়েছি। পরে পাশের ঘর থেকে আরেকজনের লাশ পেয়েছি। মনে হয় এটি স্বামীর লাশ। ঘরে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ। আনুমানিক ৩ দিন আগে তাদের হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে। নিহতদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হচ্ছে।

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (অপারেশন্স) জামাল সিকদার বলেন, একটি ফ্ল্যাট থেকে একই পরিবারের তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের হত্যা করা হয়েছে। আমরা তদন্ত করছি। এখনও কারণ জানা সম্ভব হয়নি। বিস্তারিত পরবর্তীতে জানা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *