সাভারে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন ও মোর‌্যাল উদ্বোধন। তাজা খবর

সাভারে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন ও মোর‌্যাল উদ্বোধন। তাজা খবর

তাজা খবর:

বর:নানা আয়োজনে ঢাকার অদূরে সাভারে বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। মঙ্গলবার দিনব্যাপী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে র‌্যালী, আলোচনাসভা, কেক কাটা ও বঙ্গবন্ধুর মোর‌্যাল উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করা হয়েছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করার জন্য বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও প্রবেশদ্বারে আলোকসজ্জা করা হয়।

দিনের শুরুতেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস ২০২০ উপলক্ষে সাভার সেনানিবাসে যথাযোগ্য মর্যাদা এবং উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। এসময় সাভার সেনানিবাসের এরিয়া কমান্ডার, নবম পদাতিক ডিভিশন এর জিওসি মেজর জেনারেল মোহাম্মদ সাইফুল আবেদীন, বিএসপি, এসজিপি, এনডিসি, পিএসসি এর উপস্থিতিতে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও রোডমার্চ অনুষ্ঠিত হয়। আয়োজিত কর্মসূচিতে সাভার সেনানিবাসে কর্মরত সকল কর্মকর্তা, জেসিও, সৈনিকবৃন্দ ও অসামরিক ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করেন।

এর আগে সোমবার দিবাগত রাত ১২ টা এক মিনিটে সাভার উপজেলা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর একটি মোর‌্যাল উদ্বোধন এবং তাতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। মঙ্গলবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানরে জন্মশতর্বাষকিী উপলক্ষ্যে সাভার মডেল থানায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে কেক কাটেন দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। এসময় থানা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত কামনা ও করোনা ভাইরাস থেকে দেশকে রক্ষার জন্য দোয়া প্রার্থনা করা হয়।

অন্যদিকে মুজিববর্ষের অঙ্গীকার পুলিশ হবে জনতার, এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে মঙ্গলাবার সকালে আশুলিয়া থানা ভবন থেকে বাইপাইল বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করে আশুলিয়া থানা পুলিশ। দুপুরে এতিম এবং অসহায় মানুষের মাঝে উন্নত মানের খাবার পরিবেশন এবং বাদ আছর বাইপাইল মসজিদে মিলাদের আয়োজন শেষে সন্ধ্যায় কেকে কাটার মাধ্যমে আয়োজনের সমাপ্তি করা হয়। এদিকে সাভারে বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষন কেন্দ্রে (বিপিএটিসি) বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালন করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে জনপ্রশাসনের সাহসী ভূমিকার বিকল্প নেই, তাঁর জীবনই হতে পারে সেই সাহস লাভের উৎস, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় একথা বলেন বিপিএটিসির রেক্টর এবং মো. রকিব হোসেন এনডিসি। এছাড়া জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা হবে এমন স্থান যেখানে জনগণই হবেন মূখ্য, অন্য কিছু নয়। আর সে স্বপ্নের বাস্তবায়নে জনপ্রশাসনে নিয়োজিত সকলের উদ্যোগী হবার বিকল্প নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অন্যদিকে সকালে ঢাকা ধামরাই পৌরসভা চত্বরে পিতল, তামাসহ বিভিন্ন ধাতু দিয়ে ১৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত এক টন ওজনের বঙ্গবন্ধুর একটি মোর‌্যাল উদ্বোধন করেন ঢাকা-২০ আসনের সংসদ সদস্য বেনজির আহমেদ ও পৌর মেয়র গোলাম কবির মোল্ল্যা। পরে ১০০ পাউন্ডের একটি কেক করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদযান করা হয়। এসময় করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি এবং দেশকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সকলের উপস্থিতিতে দোয়া ও মোনাযাত করা হয়। এছাড়া দিবসটি পালনের জন্য সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে মুজিব কর্ণার উদ্বোধন করা হয়েছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সঙ্গে তোলা বঙ্গবন্ধুর ছবি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধের উপর লেখা বই নিয়ে সাজানো হয়েছে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের মুজিব কর্ণারটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রসংসদ ভবনের দ্বিতীয় তলায় ফিতা ও কেকে কেটে মুজিব কর্ণারের উদ্বোধন করেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দেলওয়ার হোসেন ও রেজিস্ট্রার মোঃ দেলোয়ার হোসেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *