সাভারে হেমায়েতপুরে শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার, আটক ২

সাভারে হেমায়েতপুরে শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার, আটক ২

তাজা খবর:

ঢাকার অদূরে সাভারে নিখোঁজ হওয়ার একদিন পর এক শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে সাভারের হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ি এলাকায়। নিহত শিশুটির নাম নাফিজা (৭)। এ ঘটনায় পুলিশ পাশের ফ্লাটের এক দম্পতিকে আটক করেছে।

আটককৃতরা হচ্ছে, মোকছেদুল ইসলাম ও সোনালী বেগম। তাদের গ্রামের বাড়ি জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার কুটিপাড়া গ্রামে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে পরষ্পরকে দোষারপ করছে।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পোশাক শ্রমিক ফাতেমা বেগম তার শিশু কন্যা নাফিজাকে নিয়ে হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ি এলাকায় হাজী জাহাঙ্গীরের বাড়ির ৫ তলার একটি ফ্লাটে ভাড়া থাকে। শিশুটির পিতা হাবিবুল্লাহ বর্তমানে অসুস্থ থাকায় তাদের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এদিকে গত বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে নাফিজা বাসা থেকে আরবি পড়তে মক্তবের উদ্দেশ্যে বের হয়ে নিখোঁজ হয়। তার মা বিভিন্ন স্থানে খোঁজখুজি করে মেয়েকে না পেয়ে আজ শুক্রবার সকালে সাভার থানায় একটি অভিযোগ করেন।

অভিযোগের পর পুলিশ নাফিজাকে উদ্ধারে অভিযানে নামে। এলাকায় জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে রাত ৮ টারদিকে পুলিশ নিখোঁজ নাফিজাদের পার্শ্ববর্তী ফ্ল্যাটে অভিযান চালায়। ওই ফ্ল্যাটে তল্লাশী চালানোর এক পর্যায়ে একটি খাটের নিচ থেকে শিশুটির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। এসময় পুলিশ ওই ফ্ল্যাটের ভাড়াটিয়া পোশাক শ্রমিক দম্পতি মোকছেদুল ইসলাম ও সোনালী বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

হেমায়েতপুর চামড়া শিল্পনগরীর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই এনামুল হক জানান, আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে তারা শিশুটিকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। কিন্তু শিশুটির হত্যাকারী হিসেবে তারা একজন অপরজনকে দায়ী করেছে। শিশুটিকে হত্যার পর লাশটি প্রথমে ফ্রিজের ভিতরে ঢুকিয়ে রাখে। এরপর লাশ গুমের উদ্দেশ্যে বস্তাবন্দি করে খাটের নিচে লুকিয়ে রেখেছিল। তবে কি কারণে শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে এর রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *