সাভার পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী নিউটনকে বিজয়ী করতে প্রচারণায় দলীয় নেতা-কর্মীরা

সাভার পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী নিউটনকে বিজয়ী করতে প্রচারণায় দলীয় নেতা-কর্মীরা

তাজা থবর:

ঢাকা জেলার সাভার পৌরসভা নির্বাচন আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আর মাত্র কয়েকদিন বাকী। তাই প্রতিটি ওয়ার্ডে উৎসবের আমেজ বইছে পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। এ নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে কঠিন প্রতিদ্বন্দীতা হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। যোগ্যতার বিচারে ভোটাররা বেছে নিবেন তাদের পছন্দের কাউন্সিলরকে ইতোমধ্যে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা ও ভোট প্রার্থনায় যোগ দিচ্ছেন যার যার পছন্দের কাউন্সিলর প্রার্থীদের সমর্থক, রাজনৈতিক সহযোদ্ধা, বন্ধু-বান্ধবসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।

সাভার দক্ষিণপাড়া, কাজীমোকমা পাড়া, ঘোষ পাড়া, মধ্য পাড়া ও দক্ষিণ নামাবাজার নিয়ে পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড গঠিত। এ এলাকাটি আদি সাভার হওয়ায় পৌরসভার গুরুত্বপূর্ণ একটি ওয়ার্ড বলে বিবেচিত। অন্যান্য ওয়ার্ডের তুলনায় ৪ ওয়ার্ডটিতে অধিকাংশই হিন্দু সম্প্রদায়ের ও স্থায়ী ভোটারের বসবাস।

প্রতীক বরাদ্দের পর ৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নূরে আলম সিদ্দিকীর ফাইল কেবিনেট মার্কাকে বিজয়ী করতে তার রাজনেতিক সহযোদ্ধা, বন্ধু-বান্ধবসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ প্রচারণা ও ভোট প্রার্থণায় নেমেছেন। সম্প্রতি সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজীব, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক লিয়াকত হোসেন, সাভার থানা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক নাসির আহমেদ, পৌর যুবলীগের যুবরাজ চৌধুরী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান সহ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি রতন সাহা কাজ করছেন।

রতন সাহা একই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র জমা দিলেও পরবর্তীতে তিনি তার রাজনৈতিক সহযোদ্ধা নূরে আলম সিদ্দিকীকে সমর্থণ জানিয়ে প্রত্যাহার করে নেন। ফাইল কেবিনেট মার্কাকে বিজয়ী করতে প্রতিটি বাড়ী বাড়ী গিয়ে ভোট প্রার্থণা করছেন। বিগত নির্বাচনে তিনি কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে ভোট যুদ্ধে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন।

‘রতন-নিউটন’ এক হওয়ায় ভোটের হিসেব অনুযায়ী ও এলাকার ভোটারদের আস্থাভাজন ব্যক্তিবর্গ- দলীয় নেতৃবৃন্দের সমর্থণ পাওয়ায় নূরে আলম সিদ্দিকী নিউটনের বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি বলে মনে করছে বিশিষ্টজনেরা।

গত নির্বাচনে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়ে ৫ বছর দায়িত্ব পালন কালে পৌর মেয়র হাজী আব্দুল গণির মাধ্যমে ৪ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন রাস্তা সংস্কার, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, লাইটিং সহ এলাকার সার্বিক উন্নয়নের মাধ্যমে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করেছেন। পাশাপাশি পৌরসভা থেকে দেয়া বিভিন্ন বরাদ্দ পাওয়ার যোগ্য ব্যক্তিদের বাছাইয়ের মাধ্যমে চিহ্নিত করে তাদের পাওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। করোনা মহামারীকালে দূর্যোগ মোকাবেলায় পৌরসভার ও ব্যক্তিগত খাত থেকে নিজ এলাকার অসহায় ও গরীব, দুস্থদের খাদ্য সামগ্রীসহ বিভিন্ন সহায়তা করেছেন।

৪ ওয়ার্ড এলাকাটিকে আধুনিক একটি ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তোলার জন্য তার অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করতে আরেকটিবার তাকে কাউন্সিলর হিসেবে সুযোগ চান। তাকে ফাইল কেবিনেট মার্কায় নির্বাচিত করতে ভোটারদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে ভোট প্রার্থণা ও প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর হিসেবে প্রার্থীতা করছেন সাবেক কাউন্সিলর আব্দুল জলিল মিয়া ও সাহিদুল ইসলাম সহিদ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *