সেই ভূমিহীন ১১ পরিবার পেলো সরকারি জমি

সেই ভূমিহীন ১১ পরিবার পেলো সরকারি জমি

এ যেন স্বপ্ন, স্বপ্নই তো। যেটা কল্পনাতেই আনেননি যশোরের আদিবাসী ভূমিহীন নীল শ্রমিকের বংশধরেরা-এবার সেটাই সত্যি হলো। ভাসমান হয়ে আর পরের জায়গায় থাকতে হবে না তাদের। এবার তারা পেয়েছেন সরকারের বন্দোবস্ত দেয়া খাসজমি। এতে আনন্দাশ্রুতে ভাসছে মানুষগুলো।

তাদেরই একজন স্বামীহারা সত্তরোর্ধ চলৎশক্তিহীন হতদরিদ্র সিতু রাণী সরদার। তিনি তার ছেলে দিনমজুর শান্ত সরদারের হাত ধরে নিশ্চল হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন প্রাপ্ত জমিতে। আর ভাবছেন, কষ্টের দিন শেষ। এখন থেকে নিজের জমিতেই থাকবেন তারা।

সিতু রাণীর মতো এমন আনন্দাশ্রু দিন আনা দিন খাওয়া প্রভাস সরদার ও তার স্ত্রী মুনিলা সরদার, ছেলে দূরদেশ, আকাশ, স্বামীহারা অঞ্জলি সরদারের মেয়ে সোমা সরদার, স্বামীহারা শুটকি রাণী সরদার ও তার ছেলে দিপক, রবিন সরদার ও তার স্ত্রী মালতি সরদার, স্বামীহারা মহারাণী সরদার ও তার ছেলে উত্তম সরদার বাদশা, স্বামীহারা সীমা সরদার গেবলে ও ছেলে লিপন সরদার, তরণী সরদার ও তার স্ত্রী শেফালী সরদার, ছেলে চাঁন সওদাগর ও শীতল সরদার, স্বামীহারা সুখসা রাণী ও তার ছেলে পঙ্কজ সরদার, স্বামীহারা মমতা রাণী ও তার ছেলে রামপ্রসাদ, সাগর এবং দিলীপ সরদার ও তার স্ত্রী অনিতা সরদার ও অসিম সরদার, কালাচাঁদ সরদার সকলের চোখে- মুখে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসেন সোমবার সকালে যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের সাহাবাটি মৌজার আর এস খতিয়ান নম্বর ১ এবং আরএস দাগ নম্বর ২৪৮ ও ২৫০ এর ৩৪ শতক জমি পরিমাপ করে বুঝিয়ে দেন তাদের। যশোরের তৎকালীন জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়ালের সদয় নির্দেশনায় নীল শ্রমিক বংশধরের ভূমিহীন হতদরিদ্র এই ১১ পরিবার পেলেন জমির মালিকানা, পেলেন স্থায়ী ঠিকানা।

ভূমিহীন থেকে জমির মালিক বনে যাওয়া রবিন সরদার বলেন, স্যার (তৎকালীন যশোরের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল) খুব ভাল মানুষ। তিনি আমাদের ভাসমান জীবন থেকে মুক্তি দিয়েছেন। স্থায়ী ঠিকানা দিয়েছেন। যতদিন বেঁচে থাকব ততদিন তাকে আমরা মনে রাখব।

আব্দুল আওয়ালের নির্দেশনায় প্রথম থেকেই এ কাজের সাথে জড়িয়ে থাকা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসেন বলেন, সরকারের গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় অনগ্রসর শ্রেণির জীবনমান উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপের অংশ হিসেবে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষেরা এ সুবিধার আওতায় এসেছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২ মে যশোর জেলা স্কুল অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় ‘টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট (এসডিজি) বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মাঝে খাসজমির দলিল হস্তান্তর এবং দুস্থ ও অসহায়দের আর্থিক সহায়তার চেক প্রদান’ অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানে বংশপরম্পরায় খেটে খাওয়া সংগ্রামী এসব মানুষের ১১টি পরিবারের হাতে ১১টি দলিলের মাধ্যমে ৩৪ শতক রেজিস্ট্রি করা জমির দলিল তুলে দেন প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী। এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন তৎকালীন জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *