৭ হাজার ডিজিটাল সেন্টারে কাজ করছেন ১৫ হাজার উদ্যোক্তা

৭ হাজার ডিজিটাল সেন্টারে কাজ করছেন ১৫ হাজার উদ্যোক্তা

তাজা খবর:

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বর্তমানে সাড়ে ৭ হাজারের অধিক ডিজিটাল সেন্টারে ১৫ হাজারের বেশি উদ্যোক্তা কাজ করছেন, এর মধ্যে ৫০ শতাংশই নারী।

মঙ্গলবার (২৯ জুন) ‘গালর্স ইন টেক ডে বাংলাদেশ ২০২১’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি। আন্তর্জাতিক টেলিকমিনিউকেশন ইউনিয়নের এশিয়া অ্যান্ড দি প্যাসিফিক রিজিওনাল অফিসের উদ্যোগে আয়োজন করা হয় অনুষ্ঠানটির।

অনলাইনে যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পলক বলেন, আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের ১ লাখ ৭০ হাজার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ফাইবার অপটিক্যাল হাইস্পিড ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি যুক্ত হবে।

আইসিটি বিভাগের অধীন ডিজিটাল কানেক্টিভিটি প্রকল্পের আওতায় এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে। প্রযুক্তিতে কেউ যেন পিছিয়ে না থাকে সে লক্ষ্যে গার্লস ইন আইসিটি প্রোগ্রাম, জব অপরচুনিটি অ্যান্ড এমপাওয়াম্যান্টসহ বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইউনাইটেড নেশনের (ইউএন) সহযোগিতায় ওয়াইফাই প্রোগ্রামের মাধ্যমে ৫০ হাজার এন্টারপ্রেনিয়র তৈরি করা হয়েছে। ফিল্যান্সার থেকে এন্টারপ্রেনিয়র তৈরির লক্ষ্যে ৪ হাজার নারীকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার ও ওমেন কল সেন্টার এজেন্ট হিসেবে প্রায় ৭ হাজার নারীকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি-বেসরকারি ও বাণিজ্যিক তথ্য ও সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বটম আপ এপ্রোচ (প্রান্ত থেকে কেন্দ্র) পদ্ধতি বাস্তবায়নে ২০১০ সালে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন। বর্তমানে সাড়ে ৭ হাজারের অধিক ডিজিটাল সেন্টারে ১৫ হাজারের বেশি উদ্যোক্তা কাজ করছেন। এর মধ্যে ৫০ শতাংশই নারী। সেন্টারগুলোর মাধ্যমে প্রায় ৩০০টিরও অধিক সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রতি মাসে ৬০ লাখের অধিক সেবা গ্রহীতা ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে সেবা গ্রহণ করছেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক টেলিকমিনিউকেশন ইউনিয়নের এশিয়া ফর প্যাসিফিক রিজিওনাল ডিরেক্টর অসুকু ওকুন্ডা, এশিয়া অ্যান্ড প্যাসিফিক এলাইন্স ফর ইন্টারনেট ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ফাইন্ডেশনের রিজিওনাল হেড অন্জু মণ্ডল।

শিগগিরই বিদেশগামী কর্মীদের টিকার সমস্যা সমাধান করতে চায় সরকার। এটি বাস্তবায়নে বিদেশগামীদের নিবন্ধন দ্রুত এবং সহজ করার ব্যাপারে বৈঠক করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ ও তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

মঙ্গলবার (২৯ জুন) বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের সভাকক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৈঠকে বিদেশগামীদের টিকা গ্রহণ ছাড়া কর্মস্থলে না যাওয়ার বিষয়টির ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়। একইসঙ্গে প্রবাসী কর্মীদের বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অবদানের বিষয়টিও উঠে আসে।

বৈঠকে বিদেশগামীদের টিকা দেওয়া নিয়ে সরকারের সর্বাত্মক চেষ্টার কথা তুলে ধরেন সংশ্লিষ্টরা। শিগগিরই বিদেশগামী কর্মীদের টিকা সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করেন সংশ্লিষ্টরা।

বৈঠকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. বিকর্ণ কুমার ঘোষ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতরের মহাপরিচালক এ বি এম আরশাদ হোসেন ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *